বঙ্গবন্ধুর প্রকৃত সৈনিকেরা এমন সাদামাটাই হয়

এমপি ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ
এমপি ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ

সুভাষ সাহা (জামালপুর): রক্তচোষা ভূঁইফোড়দের ভীরে এমন বহু সৎ রাজনীতিক এভাবেই নিজেদের আড়াল করে রাখেন। সাহেদ, সাবরিনাদের নষ্টামীর গল্পে ফেসবুক যখন সয়লাব! নষ্ট মানুষরা ফুলেফেঁপে উঠছেন! তখনো এমন কিছু ধ্রুবতারার দেখা মেলে কদাচিত!

সৎ রাজনীতিবিদ একেবারে নির্বংশ হয়ে গেছে তা বলার সময় এখনো হয়নি। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে চারবারের নির্বাচিত এমপি ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ ফুটপাতের রেস্তোরাঁয় মেলামাইনের প্লেটে আপনমনে দুপুরের আহার করছেন। কোন ভ্রুক্ষেপ নেই।

ভাবছেন গল্প? ফটোশপ? যাচাই করা আপনার দায়িত্ব। খোঁজ নিয়ে মিলিয়ে নিন। যদি সত্যি হয়, ভাববেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শুধু চোর চাটার দল রেখে যাননি। আবুল কালাম আজাদ এর মতো বহু আত্মত্যাগী রাজনীতিববদও রেখে গেছেন। তাঁরা ক্ষমতা ভোগের জন্য ঠেলাঠেলি করেন না! অপেক্ষায় থাকেন।

দুঃসময়ে ঠেলাঠেলি করে দলকে রক্ষায় গুলির সামনে বুক পেতে দেবেন। দেশে আড়ালে আবডালে এমন ভাল মানুষ এখনো আছেন। ভাল মানুষদের প্রচার আমরা করি না। এই কারনে ভাল কিছু আমরা শিখি না। সকালে ঘুম থেকে উঠেই নেগেটিভ পোস্ট। দেশে মনে হয় ভাল মানুষ নাই, ভাল কাজ হয় না!

জনাব আবুল কালাম আজাদ, জামালপুর-১ আসনের চতুর্থ বারের মত নির্বাচিত সংসদ সদস্য এবং সাবেক তথ্য ও সংস্কৃতি মন্ত্রী। তিনি দেওয়ানগঞ্জের একটি খুবই সাধারন হোটেলে ডিম দিয়ে ভাত খাচ্ছেন, তিনি স্পেশাল সিকিউরিটি ছাড়াই একাই পায়ে হেটে এলাকায় গণসংযোগ করেন। একজন সাদা মনের মানুষ হিসেবে তার কাছে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে। বঙ্গবন্ধুর প্রকৃত সৈনিকেরা এমন সাদামাটাই হয়।সেলুট জানাচ্ছি বীর মুক্তিযোদ্ধাকে।