২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচে অংশ নিতে পারবেন না মেসি


ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত কোপা আমেরিকার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে চিলির গ্যারি মেডেলের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কির জেরে লাল কার্ড পান আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসি। এ ঘটনার পরই আয়োজক ব্রাজিল এবং ম্যাচ রেফারিদের ‘দুর্নীতিপরায়ণ’ হিসেবে অভিযুক্ত করেন মেসি। সেই সাথে দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল কর্তৃপক্ষের( (কনমেবল) তীব্র সমালোচনাও করেন তিনি। তাই গুঞ্জন ছিল, দুই বছরের জন্যও নিষিদ্ধ হতে পারেন মেসি। তবে শেষ পর্যন্ত এতটা কঠোর হয়নি কনমেবল। শাস্তি হিসেবে মাত্র ১৫০০ ডলার জরিমানা ও এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন পাঁচবারের বর্ষসেরা এই ফুটবলার।

গতকাল মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে দক্ষিণ আমেরিকা ফুটবল কর্তৃপক্ষ (কনমেবল) জানিয়েছে, এই নিষেধাজ্ঞার ফলে মেসি ২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচে অংশ নিতে পারবেন না।

প্রসঙ্গত, ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচে হারের পর আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনি দাবি করেন, ফাইনাল খেলার যোগ্য ছিল আর্জেন্টিনাই। বাজে রেফারিং নিয়ে অভিযোগ তুলেন মেসিও। এসব আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই করিন্থিয়াস এরেনায় চিলির বিপক্ষে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে খেলতে নামে আর্জেন্টিনা। ম্যাচের ৩৭ মিনিটের মাথায় মেসিকে বারবার ধাক্কা মারতে থাকেন চিলির ডিফেন্ডার গ্যারি মেডেল। কিন্তু মেসি ছিলেন নির্লিপ্ত। এ সময় মেডেলকে ফাউল করতে উৎসাহিত করার অপরাধে এবং মাথা দিয়ে আঘাত করার ইঙ্গিত করায় মেডেলের সঙ্গে মেসিকেও লাল কার্ড দেখান রেফারি। এরপর মেসি দাবি করেন, এই আসরে ব্রাজিলকে চ্যাম্পিয়ন করার জন্য সবকিছুই পরিকল্পনা করা আছে।