শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সেই সোনার বাংলা গড়ব আমরা’

ত্রিশাল প্রতিদিন ডেস্ক::‘এক নদী রক্ত পেরিয়ে বাংলার আকাশে রক্তিম সূর্যোদয়ের পর যুদ্ধবিধ্বস্ত জাতিকে সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। দৃঢ় হাতে হাল ধরে তিনি নৌকা ভাসিয়েছিলেন স্বপ্ন পূরণের পথে। কিন্তু বেশি দূর এগোতে পারেননি, শকুনেরা ওত পেতে ছিল, সুযোগ বুঝে বুলেটে বুলেটে ঝাঁঝরা করে দেয় জাতির জনকের বুক, ছিন্নভিন্ন করে দেয় সেই স্বপ্নের মানচিত্র। তারপর দশকের পর দশক ধরে চলে অন্ধকারের রাজত্ব।

তবে আজ দিন বদলেছে। অন্ধকার ফুঁড়ে আবার আলো ফুটে উঠেছে পূর্ব দিগন্তে। সেই স্বপ্নের সোনার বাংলা আজ আর কল্পনা নয়, অনেকটাই বাস্তব। রাষ্ট্র নায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সেই সোনার বাংলা গড়ব আমরা’। ব্যাক্তিগত এক স্বাক্ষাতকারে  মনের অব্যক্ত কথাগুলো বলছিলেন ময়মনসিংহরে ত্রিশাল পৌরসভার মেয়র এ.বি.এম আনিছুজ্জামান আনিছ।

ত্রিশাল উপজেলা আ‘লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও ত্রিশাল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত আবুল হোসেনর ছেলে মেয়র আনিছ। আশির দশকে ছাত্রলীগের কর্মী থেকে নেতৃত্বগুণের পুরষ্কার হিসেবে ১৯৮৬ সালে দায়িত্ব পেয়েছিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক পদ। ছাত্রলীগের সফল নেতৃত্বের পর দুই মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেছেন উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি পদে।

তাছাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও বঙ্গবন্ধু শিশুএকাডেমী ময়মনসিংহ জেলার সভাপতিসহ ত্রিশাল উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন খোদ এই মেয়র। সদা সহাস্যমুখ, সততা, নিষ্ঠা, সাহসীকতা তার চত্রিরের অন্যতম গুণ। যার ফলে কর্মজীবনে পেয়েছেন ত্রিশালবাসীর অকৃত্রিম ভালবাসা ও সম্মান।

গণমানুষের নেতা “নেতা আনিছ” থেকে “মেয়র আনিছ” খেতাব পেয়েছিলেন ২০১০ সালে। সেই থেকে প্রতিটি কাজকেই চ্যালেঞ্জের সাথে মোকাবেলা করেছেন তিনি। দীর্ঘ ৮ বছরের জনপ্রতিনিধিত্ব জীবনে নানা প্রতিকূলতা, বাধা বিপত্তি আসলেও কখনো পিছপা হননি আনিছ। সততা, নিষ্ঠা ও সাহসীকতার সাথে উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডের কারণে ত্রিশাল পৌরসভা সহ গোটা উপজেলাবাসীর কাছে তিনি এখন একজন সফল জনপ্রতিনিধি।
বাংলাদেশ আ‘লীগ থেকে মনোনয়ন পেলে মেধা প্ররিশ্রম ও সততা দিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ময়মনসিংহ ৭ (ত্রিশাল) আসনটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে রেকর্ড জয় উপহার দিতে চান আত্নবিশ্বাসী উচ্চশিক্ষিত এ মেয়র।

তিনি বলেন, ‘দল-মত নির্বিশেষে সবার উপকার করাই আমার ধর্ম । আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে ত্রিশালে অনেকেই প্রার্থী হতে চাচ্ছেন, আমিও চাচ্ছি। গণতান্ত্রিক দল হিসাবে আওয়ামী লীগে এমন প্রতিযোগিতা থাকবেই। তবে আগামী নির্বাচনে আমাকে মনোনয়ন দিলে বিপুল ভোটে জয়ী হতে পারবো ইনশাআল্লাহ। দীর্ঘদিন ত্রিশালবাসীর পাশে থেকে ইতিমধ্যে আমি নির্বাচনী এলাকা গুছিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি’।

মেয়র আনিছ আরও বলেন, ‘আমি তৃণমূলের প্রতিটি গ্রামে গ্রামে যাচ্ছি, সরকারের উন্নয়নের চিত্র ভোটারদের কাছে তুলে ধরছি। ত্রিশালে শিক্ষাক্ষেত্রে বিভিন্ন স্কুল কলেজের সংস্কার প্রয়োজন। বিভিন্ন মাদ্রাসার শিক্ষার উন্নয়নেও কাজ করে যাচ্ছেন এবং ভবিষ্যতেও এ ধারা অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি। এমপি হতে পারলে শিল্পসমৃদ্ধ ত্রিশাল গড়া ও মাদক-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়ে দৃঢ়তার সাথে কাজ করতে চান তিনি।