লোক শূণ্যতায় সবুজে ছেয়েছে ময়মনসিংহের জয়নুল উদ্যান

লোক শূণ্যতায় সবুজে ছেয়েছে ময়মনসিংহের জয়নুল উদ্যান

শামিম ইশতিয়াকঃ প্রকৃতির অন্যতম এক আকর্ষণ হলো সবুজ ছায়া সুনিপুণ বৃক্ষ লতাপাতা, গ্রামাঞ্চলে চোখ ধাধানো সবুজের দেখা মিললেও শহরে যেনো তা আমাবস্যার চাদের মতই। ময়মনসিংহ শহরের ইট বালু কংক্রিট, আর নানান দূষণের ভীড়ে শহুরে সবুজ খুজতে যেতে হয় প্রকৃতি কন্যা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস কিংবা ব্রম্মপুত্র ঘেষা জয়নুল আবেদিন উদ্যানের মত হাতেগুনা কয়েকটি স্থানে তবুও দর্শনার্থীদের ভীড় কিংবা পর্যাপ্ত পরিচর্যার অভাবে যেনো সেই সবুজ টুকুও হয়ে উঠে কেমন অমলিন, নির্জিব।

করোনা ভাইরাসের প্রকোপে প্রায় মাস দুয়েক আগেই ফাকা হয়ে উঠেছে ময়মনসিংহ শহর, কর্মস্থল কিংবা অধ্যয়নের স্বার্থে গ্রাম থেকে শহরে আসা মানুষগুলো চলে গেছে গ্রামে, শহরের বাসিন্দারাও ঘরবন্দী জীবনে নিজেদের খাপ খাইয়ে নিয়েছে, শহর হয়ে উঠেছে লোকশূণ্য, ফলে শহরের বিনোদন কেন্দ্রগুলো হয়ে উঠে ক্রমশ মৃতপ্রায়, নেই আনাগোনা কিংবা আগেকার সেই ব্যাস্ততা, নেই কিশোর কিশোরীদের আড্ডা কিংবা ভাবুক মানুষের ব্রম্মপুত্রের তীরে উদাসিনতা বিলাস, শহরে ব্যাস্ত এমন এক অবসর কেন্দ্রের বর্তমান মৃতপ্রায় অবস্থাতেও যেনো ইতিবাচক কিছু দিক চোখে পরে যা বাড়িয়ে দিয়েছে পার্কের সৌন্দর্যতা।

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু মহোদয়ের সার্বিক পরিচর্যায় সাজানো গুছানো এই স্থানে আগে থেকেই শোভা বর্ধন করেছিল নানান প্রজাতির গাছ ও ফুল যদিও দর্শনার্থীদের জন্য তা হারাতে বসেছিলো নিজেদের স্বাধীনতা কিন্তু করোনায় জনশূন্য এবং ফাকা হওয়ার উদ্যানের বৃক্ষ লতাপাতা ঘাস কিংবা ফুলেরা যেনো পেয়েছে অবাধ স্বাধীনতা, ফুটেছে হরেক প্রকারের ফুল, বৃক্ষরাজীর পাতায় পাতায় জানান নিয়েছে কড়া সবুজ, দর্শনার্থীদের পদচিহ্ন না থাকায় ঘাসগুলো বেড়ে উঠছে তার নিজস্বতা নিয়ে, সবুজে সবুজে ভীড় জমাচ্ছে হরেক প্রজাতীর পাখি, ব্রম্মপুত্রের বুক চিরে আসা বাতাস যেনো এখন হয়ে উঠেছে আরো সতেজ, সব মিলিয়ে এক অন্য সৌন্দর্য এসে ভর করেছে নগরীর এই বিনোদন কেন্দ্রে।

যদিও নতুন এমন সৌন্দর্যের জন্য নতুন এক হুমকি হয়ে উঠেছে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঝড়, দিন কয়েক আগেও ঝড়ের আঘাতে ভেঙ্গে পরেছে অনেক গাছ, নষ্ট হয়েছে অবকাঠামো।

প্রকৃতির বিলিয়ে দেওয়া সৌন্দর্য গ্রাস করি আমরা মানুষেরাই, মানব সভ্যতায় অস্তিত্ব টিকাতে আমরাই নষ্ট করি সবুজ শ্যামল সুনিপুণ পরিবেশকে, কিন্তু করোনা ভাইরাসের জন্য হলেও যেনো এই প্রকৃতি রূপ নিতে শুরু করেছে তার চিরচেনা বৈশিষ্ট কে পূজি করে যা চারিপাশের হাজারো দুঃসংবাদের মাঝেও সামান্য প্রশান্তি দিতে আমাদের সহায়ক, করোনা আক্রমণ হয়ত আমাদের হুশিয়ারি দিয়েছে প্রকৃতির আদিম সৌন্দর্যের যত্ন নিতে তাই সুস্থ ধরনীর নতুন সূর্য উদয় হলে আমাদের উচিত হবে প্রকৃতির রূপ তার নিজস্বতাকে বাচাতে একতাবদ্ধ হয়ে কাজ করা।