ময়মনসিংহে স্কুল ছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু


ময়মনসিংহ নগরীর ধোপাখলা এলাকায় এক স্কুলছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। নিহত স্কুুল ছাত্রীর নাম নাইমা শারমিন সাবা (১৪)। সে নগরীর মুসলিম গালর্স স্কুলের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী।
পরিবারের দাবী ২৫ জুন মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ৭টার দিকে নগরীর ধোপাখলা এলাকায় বাসায় ফ্যানের সাথে ফাঁসিতে ঝুলে সে আত্মহত্যা করেছে।
কিন্তু নিহতের মা ইয়াসমিনের দাবী তার প্রাক্তন স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন তার মেয়েকে নির্যাতন করে হত্যা করে আত্মহত্যার অপপ্রচার চালাচ্ছে।

নিহতের মা ইয়াসমিনের পরিবার জানান, মোঃ সাজ্জাদ ঢালী ও ইয়াসমিন দম্পতির ২ মেয়ে ও এক ছেলের মাঝে নিহত নাইমা শারমিন বড় সন্তান।
দীর্ঘ প্রায় চার বছর পূর্বে এই দম্পতির ডিভোর্স হয়ে যায়। ফলে নিহত নাইমা শারমিন সাবা তার বাবার সাথে নগরীর ১৭নং ধোপাখলা রোডের বাসায় বসবাস করে আসছিলো।
সেখানে নিহত নাইমা শারমিন তার মাদকাসক্ত বাবা, ফুপু, ফুপাতো ভাই ও চাচাদের দ্বারা প্রায়ই নির্যাতনের শিকার হতো।
পরিবার আরো অভিযোগ করে বলেন, গতকাল নাইমাকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে এখন এই ঘটনাকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়া চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

এদিকে, নিহত নাইমার বাবার পরিবারের দাবী,সে ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্মহত্যা চেষ্টা করে। তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে।
কোতোয়ালী মডেল থানার পুলিশ কর্মকর্তা সামিউল হক জানান, হাসপাতাল থেকে এই ঘটনা জানিয়ে থানায় খবর দিলে হাসপাতাল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে এটি আত্মহত্যা নাকি হত্যাকাণ্ড তা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর জানা যাবে। এই ঘটনায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে।