মুক্তাগাছায় মারুফ হত্যাকান্ডে আপন ফুফাত ভাই রাকিবকে মৃত্যুদন্ড

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় জমি নিয়ে বিরোধে পরিকল্পিতভাবে মামাতো ভাই মারুফ হত্যাকান্ডের ঘটনায় আপন ফুফাত ভাই রাকিবুল ইসলাম রাকিব(৩৫)কে মৃত্যুদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। ১৩ মে সোমবার দুপুরে ময়মনসিংহ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. হেলাল উদ্দিন এ আদেশ দেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১৯ অক্টোবর স›ন্ধায় শুক্তাগাছা উপজেলার পাইকা শিমুল গ্রামে আরব আলীর স্কুল পড়–য়া পুত্র মারুফকে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে পারিবারিক সম্পত্তির বিরোধ নিয়ে প্রতিবেশি আপন ফুফাত ভাই আব্দুর রাজ্জাকের পুত্র রাকিবুল ইসলাম রাকিব পাখি ধরার কথা বলে ফিসারির পাড়ে নিয়ে গিয়ে ধাঁরালো ছুড়ি দিয়ে গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরে মৃতদেহ ঘোম করার জন্য বস্তায় ভরে ফিসারির পুকুরের পাশে লুকিয়ে রাখে। মারুফকে খুঁজে না পেয়ে পুকুরের পাশে বস্তায় তার মৃতদেহ পায় পরিবারের সদস্যরা। আরব আলীর স্ত্রী মারুফের মা মাজেদা খাতুন ঘটনার দুইদিন পর ২১ অক্টোবর মুক্তাগাছা থানায় একটি হত্যা মামলা দয়ের করেন। পুলিশ ঘটনা তদন্ত শেষে আব্দুর রাজ্জাক, তার দুই ছেলে রাকিবুল ইসলাম ও রেজাউল ইসলামকে আসামী করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

দীর্ঘ দিন বিচার প্রক্রিয়া ও শুনানী শেষে রাকিবুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞ আদালত তাকে মৃত্যুদন্ডাদেশ প্রদান করে। অপর আসামী আব্দুর রাজ্জাক ও রেজাউল ইসলামকে মামলা থেকে অব্যাহতি প্রদান করেন বিচারক।

রাষ্টপক্ষের আইনজীবী ওয়াজেদুল ইসলাম ও আসামী পক্ষের আইনজীবী আব্দুল গফুর মামলাটি পরিচালনা করেন।
মামলায় ৯ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্যগ্রহণ ও পর্যালোচনা শেষে আসামীর উপস্থিতিতে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. হেলাল উদ্দিন আজ এ আদেশ দেন।নিহত মারুফের মা মাজেদা খাতুন রায়ে সন্তুস্টি প্রকাশ করে দ্রুত রায় কার্যকরের দাবি জানান।সূত্র-ময়মনসিংহ প্রতিদিন