‘মিথ্যা’ ও ‘বিভ্রান্তিমূলক’ তথ্য প্রদানে মালয়েশিয়ার রোষানলে পড়েছেন বাংলাদেশি যুবক

মালয়েশিয়ায় করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধ এবং এতে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমাতে দেশটিতে থাকা অবৈধ অভিবাসীদের বিষয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাতকার দিয়ে দেশটির কর্তৃপক্ষের রোষানলে পড়েছেন বাংলাদেশি যুবক রাহয়ান কবির। তার খোঁজ পেতে স্থানীয় গণমাধ্যমসহ  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতেও বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে মালয়েশিয়। দেশটির ইমিগ্রেশন পুলিশের অফিসিয়াল পেজেও তার সন্ধান পেতে সাধারণ জনগণের সহোযোগিতা কামনা করা হয়েছে।

জানা যায়, সম্প্রতি কাতারভিত্তিক আল-জাজিরার  ‘লকডআপ ইন মালয়েশিয়া লকডডাউন’ শিরোনামের একটি বিশেষ প্রতিবেদনে করোনাকালে অবৈধ অভিবাসীদের সাথে আচরণ সম্পর্কিত বিষয়ে নিজের মতামত দেন রাহয়ান কবির। ২৫ মিনিট ৫০ সেকেন্ডের ওই প্রতিবেদন প্রচারের পর মালয়েশিয়ায় ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়।

মালয়েশিয়া সরকার বিষয়টি সরাসরি অস্বীকার করে এবং আল-জাজিরাকে প্রমাণ উপস্থাপনের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

মালয়েশিয়া সরকারের মুভমেন্ট কনট্রোল অর্ডারের (এমসিও) মাধ্যমে দেশটিতে অবৈধ বিদেশিরা মহামারী করোনাকালীন বৈষম্যমূলক আচরণের শিকার হচ্ছেন বলে প্রতিবেদনে জানানো হয়।

গত ৩ জুলাই আল-জাজিরার ইংরেজি অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর থেকে দেশটির স্থানীয় নাগরিকরাও এর কঠোর সমালোচনা শুরু করে।

দেশটির পুলিশের এক মুখপাত্র জানান, আন্তর্জাতিক নিউজ এজেন্সিতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে অভিযোগ করা হয়েছে যে, মালয়েশিয়া অবৈধ অভিবাসীদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ করেছে। আর এরই প্রেক্ষিতে পিডিআরএম (মালয়েশিয়া রয়েল পুলিশ) এই বিষয়ে আরো তদন্তে নেমেছে।

ওই প্রতিবেদনে সাক্ষাৎকার দেয়ায় মালয়েশিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি যুবক রায়হান কবিরকে খোঁজার জন্য স্থানীয় গণমাধ্যমসহ মালয়েশিয়ার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

এদিকে আল জাজিরাকে মালয়েশিয়ার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগকে প্রমাণ করার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রী দাতুক সেরি ইসমাইল সাবরি বিন ইয়াকুব।

এছাড়াও ‘মিথ্যা’ ও ‘বিভ্রান্তিমূলক’ তথ্য প্রকাশ করায় মালয়েশিয়ার কাছে ক্ষমা চাওয়ার জন্য আল জাজিরা কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানান তিনি।