ভাড়া নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে যাত্রীকে চাকায় পিষ্ট

গাজীপুরে রোববার বাসভাড়া নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে এক যাত্রীকে বাস থেকে ফেলে চাকায় পৃষ্ট করে খুন করেছে আলম এশিয়া পরিবহনের এক বাসের চালক ও তার সহকারী। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে গাজীপুরের সদর উপজেলার বাঘেরবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ গাড়িটি আটক করেছে । চালক ও তার সহকারী পালিয়ে গেছে।

নিহত সালাহ উদ্দিন (৩৫) ঢাকার আলু বাজার এলাকার মৃত শাহাব উদ্দিনের ছেলে। সে বাঘেরবাজারের আতাউর রহমান মেম্বার বাড়িতে ভাড়া থেকে স্কটেক্স এ্যাপারেলস নামের পোশাক কারখানার গাড়ি চালাতেন।

পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানান, সালাউদ্দিন গত শুক্রবার তার স্ত্রীকে নিয়ে ঈদের ছুটিতে ময়মনসিংহের ফুলপুর এলাকায় তার শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে যান। বেড়ানো শেষে রোববার তারা ময়মনসিংহ থেকে আলম এশিয়া পরিবহনের গাড়ীযোগে গাজীপুরের বাসায় ফিরছিলেন। পথে ভাড়া নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর সাথে ওই পরিবহনের সহকারীর বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে গাড়ীর ভিতরেই প্রকাশ্যে সালউদ্দিনকে লাঞ্চিত করে এবং লাথি মেরে গাড়ি থেকে ফেলে দেয়ার হুমকি দেয় চালকের সহকারী।

এ ঘটনা সালাউদ্দিন মুঠোফোনে তার স্বজনদের অবহিত করেন এবং গাজীপুরের বাঘের বাজার এলাকায় তাদের থাকতে বলেন। গাড়িটি বাঘের বাজার পৌঁছলে সালাউদ্দিনকে গাড়ী থেকে ফেলে দিয়ে স্ত্রীকে না নামিয়েই বাসটি চলে যেতে উদ্যত হয়। পরে সালাউদ্দিন মাটি থেকে উঠে গিয়ে গাড়িটির গতি রোধ করার চেষ্টা চালায়। কিন্তু বাস চালক সালাউদ্দিনের উপর দিয়ে বাস উঠিয়ে দিয়ে তার স্ত্রীকে না নামিয়েই বাধাকে উপেক্ষা করে দ্রুত পালিয়ে যেতে থাকে। এতে ঘটনাস্থলেই সালাউদ্দিন মারা যান। সালাহউদ্দিনের স্ত্রীর কান্না-কাটির এক পর্যায়ে ঘটনাস্থল থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূরে চলন্ত গাড়ি থেকেই তাকে নামিয়ে চালক ও তার সহকারী পালিয়ে যায়।