ভালুকার উথুরা ইউনিয়নে আগামী নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রচারণায় খোকন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার উথুরা ইউনিয়ন পরিষদের আগামী ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার জন্য প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন রবিউল আলম খোকন । রবিউল আলম খোকন দীর্ঘদিন যাবত উথুরা ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। উথুরা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ২য় ধাপে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে ২০২১ সালের জুন মাসের দিকে । নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে এখনো অনেক সময় বাকী কিন্তু এরই মধ্যে জোর প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের এই নেতা। ইউনিয়নের প্রতিটি বাজারের চায়ের দোকান গুলোতে শুধু একটি আলোচনা তরুণ প্রজন্মের রাজনৈতিক এই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা রবিউল আলম খোকন নিয়ে। রবিউল আলম খোকন চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দিতা করতে এবং তার নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে ইউনিয়নের প্রতিটি বাজার, প্রতিটি মহল্লা এবং প্রতিটি সামাজিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে দোয়া, সহযোগিতা সমর্থন কামনা করছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার নির্বাচনী প্রচারণা এবং মতবিনিময়ের চিত্রে তার জনপ্রিয়তা লক্ষ্য করা যায়।

জানাগেছে, রবিউল আলম খোকন ১৯৯৫ ইং সালে ছাত্রলীগ এর হাত ধরে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। ১৯৯৮ ইং সালে উথুরা উচ্চ বিদ্যালয় কলেজ শাখা ছাত্রলীগের আহবায়ক নির্বাচিত হন। উথুরা ইউনিয়ন যুবলীগের কার্যকরী সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এরপর উথুরা ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেন।তার দায়িত্ব পালনে সততা ত্যাগ ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন এবং হাইকমান্ডের নির্দেশ পালন করাসহ প্রতিটি দলীয় কর্মসূচী তে অংশ গ্রহন করে কর্মসূচি সফল করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তিনি সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করায় উপজেলা, জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের সুনজরে আসেন। তাকে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য এবং ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এছাড়াও রবিউল আলম খোকন কমিউনিটি পুলিশিং উথুরা ইউনিয়ন এর ৮নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক,আনন্দ সাংস্কৃতিক ক্লাবের সভাপতি,উথুরা স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনে উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

রবিউল আলম খোকন তার প্রায় ২৪ বছরের রাজনৈতিক জীবনে গরীব দুঃখি মানুষের পাশে থেকে ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে টিন,ঘর নির্মাণ, সৌর বিদ্যুৎ বিতরণ করা সহ বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের শুরু থেকে ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ , মাস্ক বিতরণ, হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ এবং গরীব মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ করে ইতোমধ্যে ইউনিয়নবাসীর নজর কেড়েছেন। এছাড়াও বাংলাদেশ সরকার গরীব দুঃখী মানুষের মামলার সকল খরচ বহন করার যে উদ্যোগ নিয়েছেন তা বাস্তবায়ন করতে দিন রাত করে যাচ্ছেন তিনি। মাদক, বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন সহ ধর্ষনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কন্ঠস্বর নামে পরিচিত এই নেতা। অতীতে উথুরা ইউনিয়নের সোনাউল্লা উচ্চ বিদ্যালয়ের এক ছাত্রী ধর্ষনের পর আসামীদের গ্রেফতার পূর্বক সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্হা করার জন্য তার নেতৃত্বেই প্রথম মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। তাদের এই আন্দোলন সফল ও হয়।আর ধর্ষক সাইফুল ইসলাম বন্ধুক যুদ্ধে নিহত হওয়ায় অত্র এলাকায় ইভটিজিং ও ধর্ষনের মত ঘটনা এখন আর দেখা যায়না। স্হানীয় সূত্রে জানাযায়, তিনি উথুরা ইউনিয়নের প্রতিটি মানুষ এবং যুবসমাজের প্রিয় মানুষ । যিনি অত্র ইউনিয়নের মৃত ব্যাক্তিদের জানাযা নামাজ, ইসলামী সভা, ইউনিয়নের প্রতিটি অনুষ্ঠানে তার সরব উপস্হিতি ও সহযোগিতা প্রদান করে থাকেন। এছাড়াও খেলাধুলার সরঞ্জামাধী বিতরণ করেন আসছেন এবং ছাত্রছাত্রীদের খেলাধুলায় উৎসাহিত করতে নিজ খরচে তাদের মাঝে পুরুস্কার বিতরণের ব্যবস্হা গ্রহণ করার ফলে স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছেলে মেয়েরা অনেকেই মাদক ছেড়ে পড়াশুনায় মনোনিবেশ করছে বলে স্হানীয় সূত্রে জানাগেছে।

স্হানীয়রা বলেন, রবিউল আলম খোকন একজন তরুণ প্রজন্মের রাজনৈতিক এবং তার দানশীলতা, অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও সবসময় সাধারণ মানুষের পাশে থাকা নিয়ে ইউনিয়নজুড়ে আলোচনা হয়েছে ইতোমধ্যে। সাধারণ মানুষ চায় আগামী ইউপি নির্বাচনে তিনি চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন এবং তারা (সাধারণ মানুষ) তাকে ব্যালটের মাধ্যমে বিজয়ী করে নিয়ে আসবেন।

রবিউল আলম খোকনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি রাজনীতি করি মানুষের কল্যাণে এবং সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য । আমি আমার সাধ্যমত চেষ্টা করেছি মানুষের উপকার করতে, তবে কতটুকু পেরেছি তা বলতে পারবে আমার ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ। তাদের কাছ থেকে পাওয়া সমর্থন, দোয়া ও আশির্বাদ নিয়ে এবং তাদের চাওয়া পূরণ করতেই আমি চেয়ারম্যান হিসেবে আগামী ইউপি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব। আমি অত্র ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের উপর পূর্ণ আস্হা রেখে শুধু এটুকুই বলব এতগুলো মানুষের চাওয়া কখনো মিথ্যা হতে পারেনা। বিজয় আমাদের হবেই ।

নির্ভরযোগ্যসূত্রে জানাযায়, রবিউল আলম খোকন সাংসদ আলহাজ্ব কাজিম উদ্দিন আহমেদ ধনু এমপি’র অত্যন্ত আস্হাভাজন হওয়ায় দলীয় সমর্থন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ইউনিয়নবাসী অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন রবিউল আলম খোকন দলীয় প্রতীক নৌকা নিয়ে আসবেন। নৌকার টিকিট পেলে তার বিজয় সুনিশ্চিত বলে মনে করেন সচেতন মহল।