ভারতেই হবে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পরীক্ষা

অক্সফোর্ডের  তৈরি করোনার (কোভিড-১৯) ভ্যাকসিন ক্লিনিকাল ট্রায়াল সফল হয়েছে। এবার পালা চূড়ান্ত ক্লিনিকাল ট্রায়াল। আর সেই পরীক্ষা ভারতে শুরু করতে যাচ্ছে ।   এছাড়াও ভারতীয় বিজ্ঞানীদের তৈরি করা ভ্যাকসিনের ট্রায়ালও শুরু হবে কিছু দিনের মধ্যেই।

এর আগে ২০ জুলাই, সোমবার রাতে নিজেদের তৈরি করোনার ভ্যাকসিনের বড়সড় সাফল্য দাবি করে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। ভারতীয় সংস্থা সিরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে চুক্তি রয়েছে অক্সফোর্ডের। তাই আগামী সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসেই ভ্যাকসিনটি বাজারজাত করার জন্য সব রকম চেষ্টা চালাচ্ছে সিরাম। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে এমন খবর প্রকাশ করেছে ডয়েচে ভেলে।

সিরাম ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তা আদার পুনাওয়ালা জানান, ‘আমরা অত্যন্ত খুশি। ভারতে এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষা করার জন্য লাইসেন্সের আবেদন করেছি আমরা। লাইসেন্স পেলে দ্বিতীয় পর্যায়ে ব্যাপকভাবে ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু হয়ে যাবে। একই সঙ্গে টিকার উৎপাদনও শুরু করে দেয়া হবে।’

এদিকে অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীরা জানান, পরীক্ষার প্রক্রিয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত উৎপাদনে না যাওয়াই ভালো। কারণ, শেষ ধাপ পর্যন্ত টিকার কম্পোজিশনে সামান্য হলেও রদবদল প্রয়োজন হতে পারে। উৎপাদন সংস্থাগুলোর সেটা মাথায় রাখা উচিত।

বিশেষজ্ঞরা জানান, সব ঠিক থাকলে এ বছরের শেষে অথবা আগামী বছরের শুরুতে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন ভারতের বাজারে পৌঁছানোর সম্ভাবনা রয়েছে। একইসঙ্গে ভারতীয় বিজ্ঞানীদের তৈরি ভ্যাকসিনও দ্রুত সাফল্য পাবে বলেই মনে করছেন তারা। ভারতের এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষা সফল হলে তার দামও সাধারণ মানুষের আয়ত্তের মধ্যে থাকবে বলে ধারণা করেছেন তারা।

এদিকে বিজ্ঞানের জার্নাল ল্যানসেটে ভারতীয় বিজ্ঞানীরা দাবি করেন, তাদের তৈরি করোনার ভ্যাকসিন কোভ্যাক্সিন প্রাথমিক পরীক্ষায় সফল হয়েছে। তারা দ্রুতই ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু করবেন। দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সের ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া জানান, ক্লিনিকাল ট্রায়ল শুরু হওয়ার পরে তিন মাসের মধ্যে প্রাথমিক রিপোর্ট দিতে পারবেন বিজ্ঞানীরা।