বিদেশি চ্যানেলে দেশীয় পণ্যের বিজ্ঞাপন অবিলম্বে বন্ধের নির্দেশ-তথ্য মন্ত্রণালয়

স্টার জলসা এবং জি বাংলার মতো বিদেশি চ্যানেলে দেশীয় পণ্যের বিজ্ঞাপন অবিলম্বে বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে তথ্য মন্ত্রণালয়।  ১৩ মার্চ বুধবার তথ্য মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত এক পত্রে এই নির্দেশনা দেয়া হয়।

নির্দেশনা অমান্য করলে কী শাস্তি হতে পারে সেই বিষয়টিও তথ্য মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত এক পত্রে দেওয়া হয়। পত্রে বলা হয়, ক্যাবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইন-২০০৬ এর ধারা ১৯ এর ১৩নং উপধারায় বিদেশি টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচার সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে ডাউনলিংকপূর্বক সম্প্রচারিত কোনো কোনো বিদেশি টিভি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার করা হচ্ছে মর্মে জানা গেছে, যা ওই আইনের পরিপন্থী।

বিদেশি টিভি চ্যানেল ডাউনলিংকপূর্বক সম্প্রচারের জন্য প্রদত্ত অনুমতি/অনাপত্তিপত্রে ‘ক্যাবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইন,২০০৬’ যথাযথভাবে প্রতিপালনের শর্ত আরোপ করা হয়েছে। তাই বিদেশি কোনো টিভি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার করলে উক্ত আইনের ১১ ধারা মোতাবেক ডিস্ট্রিবিউশন লাইসেন্স বাতিল অথবা স্থগিতকরণ এবং ২৮ ধরা মোতাবেক বিভিন্ন শাস্তির বিধান রয়েছে।

বিদেশি চ্যানেলে দেশীয় পণ্যের বিজ্ঞাপন অবিলম্বে বন্ধের নির্দেশনা আসার আগে ১১ মার্চ সোমবার সচিবালয়ে তথ্যমন্ত্রী তার কার্যালয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছিলেন, বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে দেশীয় বিজ্ঞাপন প্রচারের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

বিদেশি শিল্পীদের দিয়ে বিজ্ঞাপন তৈরির তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার ইতোমধ্যে স্থানীয় ক্যাবল অপারেটরদের বাংলাদেশি চ্যানেলগুলোকে প্রথমদিকে রাখার নির্দেশনা দিয়েছে। এছাড়া বিদেশি শিল্পীদের দিয়ে বিজ্ঞাপন তৈরির সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বেসরকারি চ্যানেলগুলো উন্নত রাষ্ট্র বিনির্মাণে এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবায়নেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।’ তিনি আরও বলেন, ‘কিন্তু বেসরকারি টিভি চ্যানেলের কিছু সমস্যা রয়েছে। কতিপয় ব্যক্তি বিদেশি টিভি চ্যানেলে তাদের বিজ্ঞাপন প্রচার করে। ফলে দেশীয় টিভি চ্যানেলগুলো আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং সংকটে পড়ে।’

বিদেশি টিভি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার বিষয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেছিলে, এ ব্যাপারে সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।