গফরগাঁও যুবলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ ভাংচুর গুলিবিদ্ধসহ আহত-১১

 

বালু মহালের ইজারার টাকা আদায় ভাগ বাটোয়ারাকে কেন্দ্র করে রবিবার সন্ধ্যায় গফরগাঁও পৌর শহরে মেয়র ও এমপি সমর্থিত যুবলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় পৌরসভা যুবলীগের যুগ্মআহবায়ক তাজমুন আহম্মেদসহ ৫ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। আহত হয়েছে আরো অন্তত ৬ জন।

জানা গেছে, রবিবার সন্ধা সাড়ে ছয়টার দিকে পৌর শহরের চাদনী মোড়ে ব্রহ্মপুত্র নদের বালুমহালের ইজারা আদায়কে কেন্দ্র করে উপজেলা যুবলীগের যুগ্মআহবায়ক আবু কাওসার ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদি হাসান সানিল গ্রুপের সাথে পৌরসভা যুবলীগের যুগ্মআহবায়ক তাজমুন আহম্মেদ গ্রুপের তর্ক-বিতর্ক এবং হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এর জের ধরে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে পৌর শহরের জামতলা মোড়ে পৌরসভা যুবলীগের অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে উভয় গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষে তাজমুন গ্রুপের তাজমুন (৩২),হৃদয় (২৫), বিপুল (২৭). মোস্তাকিম (২০) ও তারা (২৫)কে রামদা দিয়ে কুপিয়ে ও গুলি করে গুরুতর জখম করে প্রতিপক্ষরা । এছাড়া অনীক (২০), সোহেল (২৩) রামদার কোপে আহত হয়। এলোপাথারী পিটুনীতে আহত হয় আরো ৫/৬ জন। ২০ /২৫ মিনিট ব্যাপী সংঘর্ষ চলাকালে শতাধিক রাউন্ড গুলির শব্দ পাওয়া যায়।

স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে পৌরশহরের কলেজ রোডে আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করে। আহতদের অবস্থার অবনতি হলে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গফরগাঁও আধুনিক হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মাহমুদুল হাছান শিমুল জানান, এই হাসপাতালে ভর্তিকৃত তাজমুন,হৃদয়,বিপুল, মোস্তাকিম গুলিবিদ্ধ, তাদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গুরুতর আহত তাজমুন আহমেদ ও হৃদয়কে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সংঘর্ষে চলাকালে পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বাবুল হাছানের মোটর সাইকেল আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয় এবং ৭/৮টি মোটর সাইকেল ভাংচুর করা হয়। পৌরসভা যুবলীগের অস্থায়ী কার্যালয়ও ভাংচুর করা হয়।ঘটনার ৩০ মিনিট পর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ভাংচুর করা মোটর সাইকেলগুলো উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।গফরগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ খান বলেন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।দুর্জয় বাংলা