প্রাণঘাতী করোনা প্রতিরোধে প্রয়োজন সামাজিক আন্দোলন

প্রাণঘাতী করোনা প্রতিরোধে প্রয়োজন সামাজিক আন্দোলন

বিশ্বায়নের যুগে একটি ভাইরাস কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে যা ইতিমধ্যেই আমরা তা উপলব্ধি করছি। আর এর প্রভাব ইতিমধ্যেই আমাদের দেশে ব্যাপক হারে উপলব্ধি করা যাচ্ছে। আমার বিশ্বাস এর ফলে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আমাদের প্রিয় মাতৃভূমিতে মানুষের জীবন যাত্রার মান এবং অর্থনীতিতে ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব বিস্তার করবে। দেশের অন্যান্য অঞ্চলের মতো আমাদের ভালুকাতেও এর প্রভাব ব্যাপকভাবে পরার সম্ভাবনা রয়েছে।

আর আমি মনে করি এ থেকে পরিত্রাণের উপায় হচ্ছে একটি সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা। ইতিপূর্বে যে সকল সামাজিক কর্মকাণ্ডে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে পেরেছি সেই সব জায়গাতেই আমি এই আন্দোলনের কথা বলে আসছি।

আর আমি মনে করি এই আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে সকল শ্রেণীর মানুষদেরকে নিয়ে। একটি সমাজে শুধুমাত্র রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, বিত্তবান, এই সকল মানুষদের কে নিয়ে সকল সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়। প্রয়োজন সকল শ্রেণীর সামর্থ্যবান লোকদেরকে নিয়ে একটি সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা।

আমরা সকলেই জানি আমাদের ভালুকা কে শিল্পসমৃদ্ধ বা অন্য যেকোন নামে ডাকি না কেন এখনো নিম্নআয়ের মানুষের সংখ্যা অনেক বেশি। আর এই মানুষগুলোর চাহিদা গুটি কিছু কিছু মানুষের সামান্য দায়িত্ব পালন করার মধ্য দিয়ে পূরণ করা সম্ভব নয়।

আপনারা লক্ষ্য করলে দেখতে পারবেন এই সমস্যার জন্য আমাদের দেশের সরকার, আমাদের ভালুকার লোকাল প্রশাসন,কিছু রাজনীতিবিদ,কিছু ব্যবসায়ী,কিছু বিত্তবান তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী চেষ্টা করে যাচ্ছেন তাতে কি আমাদের চাহিদা পূরণ হওয়া সম্ভব ?  না, আমাদের সরকার যে অনুদান দিচ্ছে তা আমার জানা মতে প্রতি ওয়ার্ড এ ৩০ জন করে পাবে তাদের সাথে সমাজের যারা চেষ্টা করছেন এর মধ্য দিয়ে না হয় আরো ৩০ জনকে সম্পৃক্ত করা যাবে।আমার জানামতে আমাদের ভালুকায় সবচেয়ে অর্থনৈতিকভাবে সামর্থ্যবান লোক থাকে যে ওয়ার্ডে সেইখানেও মিনিমাম ৫০০ জন নিম্নআয়ের মানুষের বসবাস।

আবার যেই ৬০ জনকে অনুদান দেওয়া হচ্ছে সেইটাও অল্প কিছুদিনের জন্য যা চাহিদার তুলনায় পর্যাপ্ত নয়।

এমন অবস্থায় আমাদের সবাইকে ইসলাম এবং আমাদের প্রিয় নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লামের নীতি অনুসরণ করতে হবে। সকল সমর্থবান লোকদের তার আত্মীয় স্বজন এবং প্রতিবেশীদের হক পালন করতে হবে।

প্রথমত লক্ষ্য রাখেন আপনার কোন আত্মীয় ও প্রতিবেশী অনাহারে অথবা কষ্টে আছেন। এই ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে পারেন নিজ নিজ এলাকার জনপ্রতিনিধি গন। আপনারা আপনার এলাকার সামর্থ্যবান লোকদের একটি তালিকা করুন তাদেরকে তাদের আত্মীয় এবং প্রতিবেশীদের প্রতি দায়িত্ব পালনে উৎসাহিত করুন।

আর এই দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়েই আমাদের নিম্নআয়ের প্রতিবেশী এবং আত্মীয় দের চাহিদা অনেক অংশে পূরণ করা সম্ভব।

আমাদের সমাজের প্রত্যেক সামর্থ্যবান লোকদের মনে রাখতে হবে মহান আল্লাহতালা আপনাকে যে সামর্থ্যবান লোক হিসাবে এই সমাজে রেখেছেন তার জন্য আপনি এই সমাজের মানুষের জন্য কি দায়িত্ব বা হক পালন করেছেন তা আল্লাহর কাছে আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে। সুতরাং আমাদের প্রত্যেককে নিজেদের দায়িত্ব পালন করতে হবে অন্যের ওপর ভরসা করে বসে থাকলে চলবে না।

এভাবেই প্রত্যেক সমাজে যদি আমরা এইরকম একটা আন্দোলন গড়ে তুলতে পারি তাহলে এই সমস্যা থেকে অনেকাংশে পরিত্রান পাওয়া সম্ভব।

এইটা একান্তই আমার নিজস্ব মতামত কোন ভুল ত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। প্রয়োজনে আপনাদের মতামত দিবেন এর মধ্য দিয়ে সমাজ উপকৃত হবে। ধন্যবাদ

লেখক: মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান মামুন।

স্বত্তাধীকারী: সুপ্তি সোয়েটার লিমিটেড।
ভালুকা, ময়মনসিংহ।