পল্লীবিদ্যুৎতের মিটার ভাড়া/ডিমান্ড চার্জ মওকুফ না হয় জমির ভাড়া দাবি গ্রাহকদের

নিজস্ব প্রতিনিধি : সারাদেশের ন্যায় ময়মনসিংহ বিভাগের সচেতন জনগন সোসাল মিডিয়ায় প্রতিবাদ জানাচ্ছেন ময়মনসিংহ পল্লিবিদ্যুৎ সমিতি-২ কোম্পানির কাছ থেকে গ্রাহকরা নগত টাকায় মিটার কিনে নিজের ঘরে লাগিয়ে বছরের পর বছর কেন মিটার ভাড়া/ডিমান্ড চার্জ দিতে হয়! তাহলে গ্রাহকদের জমিতে বিদ্যুতের খুঁটি বছরের পর বছর ফ্রি থাকবে কেন?

মোবাইল কোম্পানিগগুলো নেটওয়ার্ক পেতে বাংলাদেশের যেকোন জায়গায় যদি তাদের কোম্পানির টাওয়ার করে তবে তা বছর বা মাসিক ভাড়ার ভিত্তিতে চুক্তিনামা করে তবে টাওয়ার করেন! তাহলে পল্লিবিদুৎ গ্রাহকরা নিজের টাকায় বিদ্যুতের মিটার কিনার পরও কেন প্রতি মাসে মিটার ভাড়া / ডিমান্ড চার্জ দিতে হচ্ছে?

সাধারন খেটেখাওয়া গ্রাহকদের দাবি বিদ্যুতের খুঁটি পুতে লাইন টানিয়ে ফসলি জমি নষ্ট করে,ওভারহেড লাইন টেনে আমাদের শত শত গাছ বিনামূল্যে কেটে কোটি কোটি টাকা ব্যবস্যা করার পরও কেন জমির ভাড়া দিবে না বিদ্যুৎ কোম্পানি? হয় গ্রাহকদের মিটার ভাড়া/ডিমান্ড চার্জ মওকুফ করুন নাহলে গ্রাহকদের জমির ভাড়া দিন।

এছাড়া পল্লিবিদুৎ কোম্পানি সরকারি নির্দেশে করোনার দিনগুলোতে দুই মাস বিল নেওয়া বন্ধ রেখেছে ঠিকই কিন্তু অফিসে বসে প্রতিটি গ্রাহকদের দুইমাসের বিলে আকাশ পাতাল ব্যবধান করে বিল তৈরী করেছেন। যাতে গ্রাহকদের বিদ্যু বিল বিগত দুইমাসের চেয়ে দুইগুন তিনগুন বিল বেশি করেছে! এতে মানুষের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে! করোনার মাঝেও পল্লিবিদ্যুৎ সাধারন গ্রাহকদের রক্তচোষে একেবারে নি:স্ব করে দিচ্ছে! প্রতিবাদ বা দেখার কেউ নেই। গত তিন মাসের বিলে ময়মনসিংহ পল্লিবিদ্যুৎ সমিতি তাদের প্রতিটা গ্রাহকদের বিল তৈরীতে ভূতুড়ে বিল করেছেন মনগড়া! এতে শত শত কোটি টাকা গ্রাহকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে!
তাই প্রতিটি পাড়ামহল্লায় প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে ভূতুড়ে বিল বাতিল করেন, প্রতিমাসে মিটার ভাড়া/ ডিমান্ড চার্জের টাকা মওকুফ করেন নাহলে গ্রাহকদের জমির ভাড়া দিন।

এছাড়া আবাসিক গ্রাহক জানান গত মে মাসের ভূতুড়ে বিল তার ব্যাংকে পরিশোধ করার পরও জুন মাসের বিলের সাথে প্রায় সকল গ্রাহকদের মে মাসের বিল যোগ করে দিগুন বিল করা হয়েছে এতে যার বিল ছিল একহাজার তার এখন দুইহাজার তাহলে সাধারন গ্রাহকরা কোথায় যাবেন এর সুরাহা পেতে! অথচ গ্রাহকদের মাইকিং করে পল্লিবিদুৎ কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দিয়েছে ৩০ জুনের ভিতর সকল গ্রাহকরা বিদ্যু বিল পরিশোধ না করলে বিদ্যুৎ সংযোগ বিছিন্ন সহ জরিমানা করা হইবে! এতে গ্রামের অসহায় দিনমজুর, শ্রমিক কৃষকরা পড়েছে বিপাকে তাদের করোনার প্রভাবে লক-ডাউনে গত তিনমাস ধরে কোন ইনকাম না থাকায় তারা কেমনে বিদ্যু বিল পরিশোধ করবে সেটাই হয়েছে মরার উপর খাড়া ঘা।

সাধারন ভুক্তভোগী গ্রাহকদের দাবি সরকার যদি তাদের প্রতি সুদৃষ্টি দিতেন পল্লিবিদ্যুৎ কোম্পানি কেমনে সাধারন মানুষকে জিম্মি করে দিগুন টাকা বিল নিচ্ছে, প্রতিমাসে মিটার টাকা দিয়ে গ্রাহক কিনার পরও মিটার চার্জ/ডিমান্ড চার্জ দিতে হচ্ছে তা বন্ধ করুন তবে গ্রামের খেটেখাওয়া অসহায় দিনমজুর বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে পারবে! নাহলে আগের মতো কূপি বাতি হারিকেন সাধারন মানুষের শেষ ভরসা হবে।

এদিকে পল্লিবিদ্যুৎ এর মনগড়া বিল তৈরীর প্রতিবাদে আগামী ২ রা জুলাই ভালুকার মু্ক্তিযোদ্ধা চত্বরে যুব মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।