জাতীয় পরিচয়পত্র থেকে বাদ যাবে না দুই বছরের শিশুও

জাতীয় পরিচয়পত্র

শূন্য থেকে ১৮ বছরের কম বয়সী নাগরিকদের দেয়া হবে জাতীয় পরিচয়পত্র। প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে এমন প্রস্তাব উঠে এসেছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ১৮ বছরের কম বয়সী নাগরিকদের নিবন্ধন ও তাদের পরিচয়পত্র সরবরাহের জন্য বরাদ্দের প্রস্তাব করেন।

তিনি বলেন, জাতীয় নির্বাচন কমিশন (ইসি) ভোটার হওয়ার অযোগ্য এসব নাগরিককে নিবন্ধনের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্র সরবরাহ করবে। এ প্রক্রিয়া বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশের সব নাগরিকদের নিবন্ধনের আওতায় আনা হবে।

প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের জন্য ১ হাজার ৯২০ কোটি ৭০ লাখ টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব রাখা হয়েছে। এরমধ্যে পরিচালন খাতে ৭৭৯ কোটি ৪৭ লাখ টাকা ও উন্নয়ন খাতে ১ হাজার ১৪১ কোটি ২৩ লাখ টাকা বরাদ্দ রয়েছে।

বাজেটে ইসির শূন্য হতে ১৮ বছরের নাগরিকদের নিবন্ধন ও এনআইডি প্রদানসহ অন্তত ১১টি খাতে কর্মসূচি বাস্তবায়নের কথা বলা হয়েছে।

অন্য খাতগুলোর মধ্যে ছবিসহ ভোটার তালিকা তৈরি, সংসদের উপনির্বাচন, স্থানীয় সরকারের সাধারণ ও উপনির্বাচন, উন্নতমানের স্মার্ট জাতীয়পত্র প্রদান, দুই বছর মেয়াদি পেপার লেমিনেটেড পরিচয়পত্র প্রদান, ইভিএম প্রকল্পের আওতায় ৮২ হাজার ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ও সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতি ক্রয়, কর্মকর্তাদের দেশি-বিদেশি প্রশিক্ষণ, প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকদের প্রবাসেই নিবন্ধন ও পরিচয়পত্র প্রদান, এনআইডি তথ্য যাচাই এবং ইসির উন্নয়ন ও নির্বাচনি ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন রয়েছে।

একাদশ সংসদ নির্বাচন থাকায় এবং বছরের মধ্যবর্তী সময়ে ইভিএম ক্রয় প্রকল্পসহ চলতি অর্থবছরে পরিচালন ও উন্নয়ন খাতে ইসির সংশোধিত বাজেট ছিল ৪ হাজার ৩৪৩ কোটি ১২ লাখ ২৩ হাজার টাকা।

চলতি অর্থবছরে ইসির জন্য বরাদ্দ ছিল ১ হাজার ৮৯৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে উন্নয়ন বরাদ্দ ছিল ২১০ কোটি টাকা, আর পরিচালনা ব্যয় ছিল ১ হাজার ৬৮৫ কোটি টাকা।