কাশ্মির পরিদর্শনে যাওয়া কংগ্রেসের রাহুল গান্ধীসহ বিরোধী নেতাদের ফেরত পাঠিয়েছে প্রশাসন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::জম্মু-কাশ্মিরের চলমান অস্তিরতার মধ্যে রাজ্যটি পরিদর্শনে যাওয়া কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধীসহ বেশ কয়েকজন বিরোধী নেতাকে ফেরত পাঠিয়েছে সেখানকার প্রশাসন। শনিবার শ্রীনগর বিমানবন্দর থেকে তাদের দিল্লি ফেরত পাঠানো হয়।

ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো জানায়, দেশটির প্রধান বিরোধী দলের এই নেতাকে বিমানবন্দর থেকে সদলবলে ফেরত পাঠানো হয়। প্রশাসনের দাবি, রাহুলের কাশ্মির পরিদর্শন সেখানকার চলমান অস্থিরতায় আরও উত্তেজনা বাড়াবে। তাই তাদের বিমানবন্দর থেকেই ফেরত পাঠানো হয়েছে।

এর আগে শনিবার দুপুরে জম্মু-কাশ্মিরের প্রশাসনের আপত্তি সত্ত্বেও রাজ্যটি পরিদর্শনে রওনা হন রাহুল গান্ধীসহ ১১ জন বিরোধী দলের নেতা। কদিন আগেই কাশ্মিরে যাওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছিলেন রাহুল। জম্মু-কাশ্মিরের রাজ্যপালও তাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

রাহুল আসছেন এমন খবর শুনেই জম্মু-কাশ্মিরের তথ্য ও জনসংযোগ দপ্তর থেকে এক টুইট বার্তায় বলা হয়েছিলো, সরকার জম্মু-কাশ্মিরের বাসিন্দাদের রক্ষা করার কাজ করে যাচ্ছে। এমতাবস্থায় রাজনৈতিক নেতাদের বিড়ম্বনা না বড়িয়ে সহযোগিতা করা উচিত। তাদের বোঝা উচিত শান্তি বজায় রাখাই এখন প্রধান কাজ।

কাশ্মিরের এ সফরে রাহুলের সঙ্গে আরও ছিলেন কংগ্রেসের আনন্দ শর্মা, সিপিএমের সীতারাম ইয়েচুরি, কে সি বেণুগোপাল, সিপিআই নেতা ডি রাজা, এলজেডির শরদ যাদব, ডিএমকে-র তিরুচি শিবা, তৃণমূলের দীনেশ ত্রিবেদী, এনসিপির মাজিদ মেমন, জেডিএসের ডি কে রেড্ডি, আরজেডির মনোজ ঝা।

উল্লেখ্য, চলতি মাসের ৫ আগস্ট ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মিরের বিশেষ সুবিধা ৩৭০ ধারা সংবিধান থেকে বাতিল করে বিজেপি সরকার। পাশাপাশি জম্মু-কাশ্মির ও লাদাখকে আলাদা আলাদা দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করা হয়। সেখানকার বাসিন্দারা যেনো এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ না করতে পারে তাই অঞ্চলটিতে আগের দিনই ইতিহাসের কঠোরতম নিরাপত্তা পরিস্থিতি জারি করে মোদি সরকার।24livenews