করোনা ঝুঁকিতেও কর্মতৎপর ইউনিয়ন উদ্যোগতা শাহীন

এস.এম.জামাল উদ্দিন শামীম,ময়মনসিংহ: সারাদেশের মত ময়মনসিংহের ত্রিশালের সদর ইউনিয়নের বিনা বেতনে উদ্যোক্তা মাজহারুল ইসলাম শাহীন প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস ঝুঁকিতে দায়িত্ব পালন করছেন।

তৃণমূল পর্যায়ে গ্রামের বাতিঘরখ্যাত ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার করোনা আতংকের মধ্যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সরকারের তৃনমূলের প্রতিষ্ঠান ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তারা মাতৃ কালীন ভাতা,সরকারী ত্রান কার্যক্রমের তালিকা প্রস্তুতসহ ইউপি’র নানাবিদ কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছেন। করোনা ভাইরাসের কারণে সারাদেশের অসহায় মানুষদের পাশে দাড়িয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারই ধারাবাহিকতায় তৃনমূল পর্যায়ে ত্রান সামগ্রী সঠিকভাবে পৌঁছে দেওয়ার জন্য কাজ করছে ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধিরা।

৬নং ত্রিশাল ইউডিসি,এশিয়া এজেন্ট ব্যাংকিং এ-র দায়িত্বে থাকা মাজহারুল ইসলাম শাহীনের ভাষ্যমতে বিভিন্ন এলাকায় গণপরিবহন ও ছোট ছোট যানবাহন চলাচল সীমিত হওয়ায় উদ্যোক্তারা নিজেদের জীবনের ঝূঁকি নিয়ে ইউডিসিতে বসে কম্পিউটারে অক্লান্ত পরিশ্রম করে ত্রানের তালিকা করে যাচ্ছেন ইউডিসি উদ্যোক্তারা। ইউনিয়ন পরিষদের দাপ্তরিক কার্যক্রমসহ রাষ্ট্রের এই দুঃসময়ে ইউডিসি উদ্যোক্তারা এগিয়ে আসলেও উদ্যোক্তারা সারাদিন ত্রানের তালিকা করলেও উদ্যোক্তাদের ব্যাপারে কারোই নজর নেই। ফলে পরিবার নিয়ে মানববেতর জীবনযাপণ করছেন অনেক ইউডিসির উদ্যোক্তারা।

তারা মাঠে ঘাটে কাজ করার সময় তাদের করোনা ভাইরাস থেকে নিজেদের প্রতিরোধ করতে স্বাস্থ্য সুরক্ষার যেসব সামগ্রী রয়েছে তার কিছুই নাই। তাদের সুরক্ষার জন্য এসব সামগ্রী প্রদান করা এবং ঝুকি নিয়ে যারা কাজ করবেন তাদের পুরস্কৃত করাসহ স্বাস্থ্যবীমা প্রদান ও প্রণোদনা দেওয়া হলে তাদের সেবামুলক কাজের আরো গতিশীল হবে। ত্রিশাল ইউডিসির উদ্যোক্তা মোঃ শাহীন বলেন, আমরা যেহেতু মাঠ ঘাটে কাজ করছি সেই জন্য সামগ্রী প্রদান করা এবং ঝুকি নিয়ে যারা কাজ করছেন তাদের পুরস্কৃত করাসহ স্বাস্থ্য বীমা প্রদান ও প্রণোদনা দেওয়া হলে আমাদের কাজের আরো গতিশীল হবে।