এমন দুঃসময়েও মানবিক সহায়তার চর্চা অব্যাহত রয়েছে কাতারে

মানবিক সহায়তার চর্চা অব্যাহত রয়েছে কাতারে

কাতারে করোনাভাইরাসে এই মুহূর্তে আক্রান্ত ৩৩৭ জন। এঁদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ৪ জন এবং এরা সবাই বিদেশি কর্মী। করোনাভাইরাস ঠেকাতে কাতারজুড়ে বন্ধ রয়েছে সব স্কুল-কলেজ, আদালত, বিনোদনকেন্দ্রসহ অনেক কিছু।

এমন দুঃসময়েও মানবিক সহায়তার নানারকম চর্চা অব্যাহত রয়েছে কাতারে। এর ছোট দুটি নমুনা তুলে ধরছি- গত কয়েকদিনে কাতার ন্যাশনাল ব্যাংকসহ বেশ কয়েকটি ব্যাংক ঋণ গ্রহীতাদের জানিয়ে দিয়েছে, চলতি মাস থেকে মোট তিন মাস পর্যন্ত ঋণের কিস্তি আপাতত দেওয়া লাগবে না। এই তিন কিস্তি পরবর্তীতে দেওয়া যাবে এবং এতে বাড়তি কোনো ফি দিতে হবে না।

গতকাল কাতারের অন্যতম সাংস্কৃতিক নগরী কাতারা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যেহেতু আগামী দু সপ্তাহ কাতারার ভেতর অবস্থিত সব রেস্তোরাঁ, কফিশপ এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে, তাই এ দু সপ্তাহের কোনো ভাড়া বা বিল পরিশোধ করা লাগবে না।আজ একইরকম ভাড়া মওকুফের ঘোষণা দিয়েছে মুশায়রিব কর্তৃপক্ষও।

সুযোগসন্ধানী মুনাফালোভী ব্যবসায়ীদের দেশ বাংলাদেশে যখন ভ্রাম্যমাণ আদালত নামিয়ে সামান্য মাস্কের দাম নিয়ন্ত্রণ করতে হয়, তখন বাংলাদেশি হিসেবে এই দূরদেশে বসে এখানকার এসব উদ্যোগ দেখে কিছুটা হলেও মুগ্ধ হই।

লেখক: তামিম রায়হান।