আইএসের আস্তানা থেকে ইসরাইল ও ন্যাটোর অস্ত্র উদ্ধার

সিরিয় সেনাবাহিনী দেইর আয-যোহরের কৌশলগত শহর মায়েদিনে ইহুদিবাদী ইসরাইলের তৈরি ব্যাপক অস্ত্র-গোলাবারুদ উদ্ধার করেছে। সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় শহরটি আইএসের দখল থেকে মুক্ত করার পর এ সব অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়।

একজন ফিল্ড কমান্ডারের বরাত দিয়ে এ খবর দিয়েছে সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা ‘সানা।’ ইহুদিবাদী ইসরাইলের তৈরি মধ্যম, ভারি এবং হালকা অস্ত্রের পাশাপাশি পূর্ব ইউরোপের দেশগুলো এবং ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোর অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়।

সিরিয়ার ফিল্ড কমান্ডার জানান, মর্টার, গোলন্দাজ বাহিনীর জন্য ব্যবহৃত সরঞ্জাম, সাঁজোয়া যান ধ্বংস করার কাজে ব্যবহৃত ব্যাপক পরিমাণে গোলাবারুদ পাওয়া গেছে। এ ছাড়া, ন্যাটোর ৪০ কিমি পাল্লার একটি ১৫৫ এমএম ভারি কামান পাওয়া গেছে।

সিরিয়ার সন্ত্রাসীদের আস্তানা থেকে এর আগেও ইহুদিবাদী ইসরাইলের অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করেছে দেশটির সরকারি বাহিনী। পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশে হোমসের জিব আল-জারেহ্‌ অঞ্চল থেকে কয়েকদিন আগেই ব্যাপক পরিমাণে গোলাবারুদসহ ইসরাইলি কামান উদ্ধার করা হয়েছে।

আইএস মুক্ত হলো সিরিয়ার মায়াদিন

সিরিয়ার মায়াদিন শহরটি আইএস দখলমুক্ত করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। গত রোববার এমনটাই দাবি করেছে রাশিয়ার সেনাবাহিনী। খবরে বলা হয়, সিরিয়ার গুরুত্বপূর্ণ মায়াদিন শহর পুনরুদ্ধার করেছে সরকারি বাহিনী।

এ দিকে আইএসের কথিত রাজধানী রাক্কাও আইএস মুক্ত হতে চলেছে বলে খবরে বলা হয়েছে। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মেজর জেনারেল আইগর কোনশেনকোভ জানান, আইএসের দখল থেকে মায়াদিনকে পুরোপুরি মুক্ত করেছে সিরিয়ার সেনাবাহিনী। সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলে মায়াদিনেই আইএসের শেষ শক্তিশালী ঘাঁটি ছিল। তিনি বলেন, রুশ যুদ্ধবিমানের সহায়তায় আইএসের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে সিরীয় সেনাবাহিনী।

ছয় বছর ধরে সিরিয়ার চলমান গৃহযুদ্ধে অন্তত তিন লাখ মানুষ নিহত হয়েছেন। এক কোটি ১০ লাখ মানুষ এই সময়ে গৃহহারা হয়েছেন বলে ধারণা করা হয়। ২০১৪ সালে আইএস রাক্কা শহর দখল করে নিজেদের তথাকথিত খিলাফতের রাজধানী হিসেবে ঘোষণা করে। রাক্কাও এখন আইএস মুক্ত হতে চলেছে। তবে এখন কতজন বেসামরিক নাগরিক অবস্থান করছেন তা সম্পর্কে নিশ্চিতভাবে কিছু জানা যায়নি। আইএসের শেষ যোদ্ধা গত রাতে রাক্কা ত্যাগ করবে বলে খবরে বলা হয়েছে।

রাক্কা থেকে আইএসের পলায়ন

আইএস তাদের স্বঘোষিত খিলাফতের রাজধানী রাক্কা খালি করে পালিয়ে গেছে। উগ্রবাদী সংগঠনটির একটি দল গত শনিবার মধ্যরাতে রাক্কা ছেড়ে পালিয়ে গেছে। তবে মানবঢাল হিসেবে বেসামরিক নাগরিকদের সাথে নিয়ে গেছে তারা। তারা জানিয়েছে, যতক্ষণ পর্যন্ত নিরাপদ কোথাও যেতে না পারছে, ততক্ষণ বেসামরিক নাগরিকদের ছাড়া হবে না।

যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থিত কুর্দি ও আরব যোদ্ধাদের নিয়ে গঠিত সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ফোর্সেসের (এসডিএফ) মুখপাত্র মুস্তাফা বালি বলেছেন, আইএসের যেসব সন্ত্রাসী এখনো রাক্কা আঁকড়ে আছে, তাদের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে যোদ্ধারা।

রোববার তিনি বলেছেন, ‘গত রাতে আইএসের শেষ দলটি (যারা যেতে আগ্রহী) রাক্কা ছেড়ে গেছে। তবে কোনো বিদেশী আইএস সদস্য রাক্কা ছেড়ে যায়নি। এখনো কতজন আইএস রাক্কায় অবস্থান করছে, তা জানাতে পারেননি রাক্কা বেসামরিক পরিষদের কর্মকর্তা ওমর আলৌশ। শনিবার আলৌশ জানিয়েছিলেন, সন্ত্রাসীরা তাদের সাথে প্রায় ৪০০ বেসামরিক নাগরিক ধরে নিয়ে গেছে।

২০১৪ সালে সিরিয়া ও ইরাকের বিশাল অঞ্চল দখল করে নিয়ে খিলাফত ঘোষণা করে আইএস। রাজধানী করে রাক্কাকে।